তাজা খবর:

পদ্মা সেতুর রেলসংযোগ প্রকল্পের নির্মাণ কাজ করেন প্রধানমন্ত্রী                    খুনিদের সঙ্গে জাতীয় ঐক্য জনগণ মানবেনা: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী                    বিএনপি-জামাতের বাংলাদেশে রাজনীতি করার কোন সুযোগ নেই: হানিফ                    ১২বরিশাল সিটির নয়টি কেন্দ্রে পূর্ণভোট গ্রহণ শনিবার                    জঙ্গী ও সন্ত্রাসীদের এই বাংলার মাটিতে স্থান নাই: পলক                    প্রধানমন্ত্রী মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর কাজ পরিদর্শ করবেন রোববার                    ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করতে দেবে না সরকার: এলজিআরডি মন্ত্রী                    চিতলমারীতে জনপ্রিয় হচ্ছে বয়োগ্যাস প্লান্ট নির্মাণ                    জেলেপল্লীতে চলছে সমুদ্রে যাওয়ার জোর প্রস্তুতি                    গঙ্গাচড়ায় রাঙ্গাতেই ভরসা তবে....                    
  • বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ১ কার্তিক ১৪২৫

বাঁশবাগানে ফেলে যাওয়া বৃদ্ধা মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন স্বরাষ্

বাঁশবাগানে ফেলে যাওয়া বৃদ্ধা মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন স্বরাষ্

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার কুচিয়াবাড়ি গ্রামে বাঁশবাগানে ফেলে যাওয়া অসহায় বৃদ্ধা মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব

কালীগঞ্জের তৈলকূপী গ্রামের ঐতিহাসিক শিব মন্দির

কালীগঞ্জের তৈলকূপী গ্রামের ঐতিহাসিক শিব মন্দির

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার জামাল ইউনিয়নের তৈলকূপী গ্রামে বেগবতী নদীর তীরে অযতœ আর অবহেলাই

কলেজ ছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার দুই আসামী গ্রেপ্তার

কলেজ ছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার দুই আসামী গ্রেপ্তার

পাবনার সাঁথিয়ায় মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হকের মেয়ে ও সরকারী এডওয়ার্ড কলেজের দর্শন বিভাগের ছাত্রী

অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে স্কুল ছাত্রী ইতি

অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে স্কুল ছাত্রী ইতি

অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে বেঁচে থাকার জন্য ছটফট করতে থাকা মেধাবী স্কুল

নারীদের আলোর দ্বীপ-শিখা ময়মুননেছা

মোঃ দেলওয়ার হোসেন পাপ্পু

04 Oct 2018   01:25:00 PM   Thursday BdST
A- A A+ Print this E-mail this
 নারীদের আলোর দ্বীপ-শিখা ময়মুননেছা

মানব সভ্যতার দুটি চাকা এক- নারী ও দুই- পুরুষ। সভ্যতার নানা উত্থান, অর্জন এসেছে নারীর হাত ধরে। শিল্প-সাহিত্য জ্ঞান-বিজ্ঞান সর্বত্রই নারীর সফল পদচারণা। মানবসেবা ও আবিষ্কারে নারী বরাবরই ইতিহাসে নিজের অবস্থান প্রতিষ্ঠা করেছেন। ইতিহাস কাঁপানো বহু নারী খুব সাধারণ অবস্থান থেকে উঠে এসেছেন ইতিহাসের পাতায়। নানা প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে তারা দেখিয়েছেন একান্ত প্রচেষ্টা থাকলে জয় নিশ্চিত। তাই বৃটেনের একজন শিক্ষাবিদ বলেছিলেন, দেশ বা জাতির উন্নতির মূল চালিকা শক্তি হচ্ছে “শিক্ষা” আর বিশিষ্ট চিন্তাবিদ স্যার সৈয়দ আহমদ বলেছিলেন, শিক্ষার  প্রয়োজনে “স্কুল”। এরই পরম্পরায় এমনি একটি স্কুলের নাম “ফরিজা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়”, যা সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জে অবস্থিত। উপজেলার মোমিনপুর গ্রামের বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী মরহুম মনির উদ্দিন আহমদ (ময়না মিয়া) তাঁর মাতার নামে স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। আজ এই বিদ্যালয়টি ফেঞ্চুগঞ্জে নারী শিক্ষার এক উজ¦ল নক্ষত্র। যার প্রতিষ্ঠালগ্নে শিক্ষকতা করেছিলেন মোছাঃ ময়মুননেছা খাতুন। একজন মুসলিম নারী হিসেবে অনেক প্রতিকুলতা পেরিয়ে স্বামীর অনুপ্রেরনায় শিক্ষকতা পেশায় মনোনিবেশ করেন তিনি। ফলে ফেঞ্চুগঞ্জে প্রথম নারী শিক্ষিকা হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছেন ময়মুননেছা খাতুন। নারী শিক্ষার আলোয় আলোকিত নব্বই বছর বয়সী এই মহিয়সী নারী ময়মুননেছা খাতুন বয়সের ভারে রোগে-শোকে এই বৃদ্ধ বয়সে চার দেয়ালের অন্তরালে দু’ছেলে, নাতি-নাতনিদের নিয়ে অবসর সময় কাটাচ্ছেন আর পাশাপাশি মহান আল্লাহ্র সান্নিধ্যলাভে ধর্ম-কর্ম করে পরপারের প্রহর গুণছেন তিনি।
ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার রাজনপুর (মোকামবাড়ী) গ্রামে ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম সফরসঙ্গী হযরত শাহমালুম (রহঃ)’র ধাদেম পরিবারে মরহুম আছদ্দর আলী ও মরহুমা ছমরুননেছা খাতুনের ঘরে ১৯৩০ খ্রিস্টাব্দের ১৮ মার্চ জন্মগ্রহন করেন মোছাঃ ময়মুননেছা খাতুন। ৬ বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন সবার বড়। কাসিম আলী হাই স্কুল থেকে এন্টাস (ম্যাট্রিক) পাশ করার পর মাত্র ১৬ বৎসর বয়সে তারই ফুপাতো ভাই ইসলামপুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের সন্তান মরহুম নাসিম আলী’র সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন মোছাঃ ময়মুননেছা খাতুন। মরহুম নাসিম আলী ১৯৬০ খ্রিস্টাব্দ থেকে বিভিন্ন সময়ে প্রায় এক যুগ ১ নং ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে নাসিম আলী এলাকায় বেশ সুনাম কুড়িয়েছিলেন যা ফেঞ্চুগঞ্জবাসী আজও স্মৃতিচারণ করে থাকেন।
শনিবার (২৯/০৯/১৮) রাতে ফেঞ্চুগঞ্জে নারী শিক্ষার অগ্রদূত এই মহিয়সী নারী ময়মুননেছা খাতুনের ইসলামপুরস্থ বাসভবনে গিয়ে দেখা যায় রাতের খাবার নিজ হাতে খাচ্ছেন। আমি আসছি জেনে ছেলেকে জিজ্ঞেস করলেন, সে কি আমার জন্য এতক্ষণ অপেক্ষা করবে, না হয় পরে খাই? খানিকটা অপেক্ষার পর খাবার শেষ করে আমার সামনে আসতেই আমার নাম ধরে বললেন, তোমার মা-বাপ ভালানি? এখানে বলে রাখা আবশ্যক, ময়মুননেছা খাতুন আমার মায়ের শিক্ষক ছিলেন। সেই সুবাধে তিনি আমাকে খুব ¯েœহ করেন। আমাদের পারিবারিকভাবেও যাতায়াত রয়েছে সেই বাড়ীতে। আমি প্রথমে কেমন আছেন জানতে চাইলে- সরু গলায় বললেন, এই বয়সে কি আর কতটুকু ভাল থাকা যায়! তার পরেও আল্লাহ্ আমাকে অনেক ভাল রেখেছেন। একান্ত আলাপচারিতায় স্মৃতির পাতায় ভেসে উঠা স্মৃতিগুলো এক এক করে বলতে লাগলেন ময়মুননেছা খাতুন। জানালেন- প্রথিমিক শিক্ষা শুরু হয় চন্ডী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে। তারপর প্রথম মুসলিম ছাত্রী হিসেবে সহপাঠী নুরুননাহার (মরহুম ফয়েজ মিয়া ইঞ্জিনিয়ারের স্ত্রী ও সাবেক সচিব মোঃ বদরুদ্দোজা’র মাতা) কে নিয়ে কাসিম আলী হাই স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হন। যদিও সেই সময় শাড়ী পরার মত বয়স হয়নি, তাই কোন রকমে দুই বান্ধবী সহপাঠীসহ শাড়ী পরে স্কুলে উপস্থিত হন। তখন সতীর্থ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী (করিমপুর) ও জনাব মাহবুবুল করিম চৌধুরী (মিলিটারী স্যার, করিমপুর) সহ অনেকে বলতে থাকেন, আমাদের স্কুলে দুই ‘পুড়ি’ (মেয়ে) শাড়ী পরে এসে ভর্তি হয়েছে! এভাবে আরো কতকিছু শুনতে হয় সেদিন। তখন স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন শচী বাবু। এই স্কুল থেকে তিনি এন্টাস (মেট্রিক) পাশ করেন।
বৈবাহিক জীবনে সুখি দম্পতি ময়মুননেছা খাতুন স্বামীর অনুপ্রেরনায় তৎকালীন নারী শিক্ষার সার্বিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভ’মিকা রেখেছিলেন তিনি। ফেঞ্চুগঞ্জের প্রথম মহিলা শিক্ষিকা হিসেবে নিজ গ্রামে (মরহুম হাবিবুর রহমান কনাই মিয়ার বাড়ীর নীচে) ইসলামপুর গার্লস এমই মাদ্রাসায় প্রতিষ্ঠালগ্নে শিক্ষিকার দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে ১৯৬২ খ্রিস্টাব্দে ফরিজা খাতুন বালিকা উচ্চবিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হলে ওই স্কুলের শিক্ষকতার দায়ভার গ্রহন করেন ময়মুননেছা খাতুন। এ সময় বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠালগ্নে রাজনপুর গ্রামের বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ব্যাক্তিত্ব মরহুম হাজী সজ্জাদ আলী, ফেঞ্চুগঞ্জ বাজারের প্রবীন ব্যবসায়ী ও শিক্ষা দরদী ব্যক্তিত্ব মরহুম আবদুর রহমান মাস্টারের সাথে ময়মুননেছা খাতুন অবৈতনিক শিক্ষক হিসাবে পাঠদান শুরু করেন।  পাঠদানের পাশাপাশি শিক্ষিকা ময়মুননেছা ছাত্রীদেরকে সেলাই ও রন্ধন শিক্ষাসহ নারীদের সৎচরিত্র গঠনের জন্য উপদেশ মূলক বক্তব্য রাখতেন তিনি। যে চার জন ছাত্রী স্কুলে প্রথম ভর্তি হন তাদের নামও ময়মুন নেছার স্মরণ রয়েছে। তারা হলেন- নিরা বেগম (মাইজগাঁও গ্রামের মরহুম মবশ্বির আলীর মেয়ে ও মালেক-এহিয়ার বোন), মেহেরননেছা মমতা (নিজ ছত্তিশ গ্রামের মরহুম আজমল আলীর মেয়ে ও মনি’র বোন), লায়লা বেগম (রাজনপুর গ্রামের মরহুম মজহর আলীর মেয়ে ও শিক্ষানুরাগী মোঃ ফরমান আলীর বোন) ও বেলা বেগম (রাজনপুর গ্রামের হারুন মিয়ার বোন)। ১৯৮৫ খ্রিস্টাব্দে ফরিজা খাতুন বালিকা উচ্চবিদ্যালয় থেকে অবসর গ্রহণ করেন শিক্ষিকা ময়মুননেছা খাতুন। জীবন সায়াহ্নে তার অগণিত ছাত্রী ও বিদ্যালয়ের নবীন-প্রবীন শিক্ষক-শিক্ষিকা ও সকল মানুষের প্রতি দোয়া প্রার্থনা করেছেন তিনি। ৩ পুত্র ও ১ কন্যা সন্তানের জননী ময়মুননেছা খাতুনের ৩য় পুত্র ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দে মারা যান। তার নিজের অনুপ্রেরণায় ১ম পুত্র জগলু (অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক) ও একমাত্র কন্যা নাজু (বর্তমানে লন্ডন প্রবাসী) শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত করেন এবং ২য় পুত্র জয়নু নিজ কর্মক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত।
সময়ের দাবিতে, প্রয়োজনের তাড়নায় এবং সমাজের চাহিদায় শিক্ষিকা ময়মুননেছার মত নারীরা আজ পরিবারের ক্ষুদ্রতর গন্ডি থেকে বেরিয়ে বৃহত্তর সামাজিক আঙিনায় নিজেদের সক্রিয় ভূমিকা জোরদার করে চলেছে। সমাজের অর্ধেক হিসেবে নারীরা যে কোনভাবেই পিছিয়ে নেই তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এখন সমৃদ্ধির প্রায় ক্ষেত্রেই নারীর সক্রিয় সম্পৃক্ততা দৃশ্যমান। কিন্তু পাশাপাশি স্বাধীনতা, অধিকার এবং মর্যাদার ক্ষেত্রে নারীরা এখনও কিছুটা উপেক্ষিত।
শিক্ষার আলোয় উদ্ভাসিত শিক্ষিকা ময়মুননেছার পদাঙ্ক অনুসরণে একদিন ফেঞ্চুগঞ্জের প্রাচীন নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ফরিজা খাতুন বালিকা উচ্চবিদ্যালয় সরকারিকরণে সরকার এগিয়ে আসবে আর জীবদ্দশায় শিক্ষিকা ময়মুননেছা দেখে যেতে পারেন সেই ষাট দশকের ফরিজা খাতুন বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের নাম রূপান্তরীত হয়ে ফরিজা খাতুন সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় হয়েছে।

লেখক, সাংবাদিক ও মানবতাকর্মী, ফেঞ্চুগঞ্জ, সিলেট

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
 
A- A A+ Print this E-mail this
আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ
পড়তে চাই:
Fairnews24.com, starting the journey from 2010, one of the most read bangla daily online newspaper worldwide. Fairnews24.com has the highest journalist among all the Bangladeshi newspapers. Fairnews24.com also has news service and providing hourly news to the highest number of online and print edition news media. Daily more then 1, 00,000 readers read Fairnews24.com online news. Fairnews24.com is considered to be the most influencing news service brand of Bangladesh. The online portal of Fairnews24.com (www.fairnews24.com) brings latest bangla news online on the go.
৪৮/১, উত্তর কমলাপুর, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
ফোন : +৮৮ ০২ ৯৩৩৫৭৬৪
E-mail: info@fns24.com
fnsbangla@gmail.com
Maintained by : fns24.net